- Advertisement -

আচরণবিধি মানাতে মাঠে থাকবেন ৮০২ নির্বাহী হাকিম

ঢাকা: দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আচরণবিধি প্রতিপালন নিশ্চিত করতে নিয়োজিত থাকবেন ৮০২ জন্য নির্বাহী হাকিম।

বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর) নির্বাহী হাকিমদের নিয়োজিত করার জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

 

চিঠিটি পাঠিয়েছেন ইসির নির্বাচন পরিচালনা শাখার উপ-সচিব মো. আতিয়ার রহমান। এর আগে গত ২১ নভেম্বর আড়াই হাজারের বেশি নির্বাহী হাকিম নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ইসি।

সংস্থাটির কর্মকর্তারা বলছেন, নির্বাচনী কাজে এত সংখ্যক হাকিম নিয়োগ করা হলে, অন্যান্য কাজে ব্যাঘাত ঘটবে। তাই সে সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে ইসি।

আগে প্রতি তিনটি ইউনিয়নের জন্য এক জন, দুর্গম (পার্বত্য এলাকাসহ) ও দূরবর্তী প্রতি দু’টি ইউনিয়নের জন্য এক জন; প্রতি পৌরসভার জন্য তিন জন, তবে বৃহৎ পৌরসভার ক্ষেত্রে চার জন; সিটি কর্পোরেশন এর প্রতি চার থেকে পাঁচটি সাধারণ ওয়ার্ডের জন্য এক জন, তবে ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এলাকায় সর্বোচ্চ প্রতি তিন ওয়ার্ডের জন্য একজন নির্বাহী হাকিম নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল কমিশন।

সেই সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে এখন প্রতি উপজেলায় এক জন, তবে ১৫টি ইউনিয়নের অধিক (পৌরসভাসহ) ইউনিয়ন বিশিষ্ট উপজেলায় দুই জন; জেলা সদরের ‘এ’ ক্যাটাগরির পৌরসভায় এক জন, তবে ৯ ওয়ার্ডের অধিক হলে দুই জন; ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে ১১ জন; ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে ১৫ জন; চট্টগ্রাম সিটিতে ১০ জন; খুলনা সিটিতে ছয় জন; গাজীপুর সিটিতে চার জন, অন্যান্য সিটি কর্পোরেশনে তিন জন করে নির্বাহী হাকিম নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংস্থাটি।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, আগামী ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে মোবাইল কোর্ট আইন, ২০০৯ এর আওতায় আচরণবিধি প্রতিপালনার্থে প্রত্যেক নির্বাচনী এলাকায় প্রয়োজনীয় নির্বাহী হাকিম নিয়োগ করার জন্য নির্বাচন কমিশন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন। এ লক্ষ্যে ৩০০টি নির্বাচনী এলাকায় ২৮ নভেম্বর থেকে ৪ জানুয়ারি পর্যন্ত নির্বাহী হাকিমরা দায়িত্ব পালন করবেন।

স্থানীয় বাস্তবতা ও প্রয়োজনীয়তার নিরিখে বিভাগীয় কমিশনারের পরামর্শক্রমে জেলা হাকিমরা (জেলা প্রশাসক) ইসি নির্ধারিত সংখ্যার কম-বেশি করতে পারবেন।

এছাড়া প্রত্যেক জেলায়, জেলা হাকিম অধীন ১/২ জন নির্বাহী হাকিম অতিরিক্ত হিসাবে নিয়োজিত রাখতে হবে। যাতে জরুরি প্রয়োজনে যে কোনো স্থানে দায়িত্ব পালন করতে পারেন।

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, ভোটগ্রহণের কয়েকদিন পূর্ব থেকে ভোটগ্রহণের দুই দিন পর পর্যন্ত অথবা কমিশনের সিদ্ধান্ত অনুসারে মোবাইল, স্ট্রাইকিং ফোর্সের সাথে বিশেষ করে বিজিবি বা অনুরূপ বাহিনীর প্রতি টিম বা প্লাটুনের সাথে নির্বাহী হাকিম নিয়োজিত করা হবে বিধায় ওই সময় আচরণবিধি প্রতিপালন সংক্রান্ত নির্বাহী হাকিমের সংখ্যা হ্রাস করার প্রয়োজন হবে।

এছাড়া মোবাইল, স্ট্রাইকিং ফোর্সের সাথে নির্বাহী হাকিম নিয়োগ ছাড়াও ভোটগ্রহণের কয়েকদিন পূর্ব হতে ভোটগ্রহণের পর পর্যন্ত কিছু সংখ্যক নির্বাহী হাকিম নির্বাচনী এলাকায় সার্বিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষার কাজেও নিয়োজিত করার প্রয়োজন হবে।

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ৩০ নভেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাই ১ থেকে ৪ ডিসেম্বর, রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কমিশনে আপিল দায়ের ও নিষ্পত্তি ৫ থেকে ১৫ ডিসেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ১৭ ডিসেম্বর। রিটার্নিং কর্মকর্তারা প্রতীক বরাদ্দ করবেন ১৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনী প্রচার চলবে ৫ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত। আর ভোটগ্রহণ হবে ৭ জানুয়ারি (রোববার)।

মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published.

প্রতিনিয়ত সি এন এন ঢাকার সর্বশেষ খবর মোবাইলে নোটিফিকেশন পেতে.. হ্যা বিস্তারিত