- Advertisement -

সন্ত্রাসী দলের সঙ্গে সংলাপ হতে পারে না : কাদের

ঢাকা: বিএনপিকে সন্ত্রাসী দল উল্লেখ করে তাদের সঙ্গে সংলাপ হতে পারে না বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, বিএনপি এরই মধ্যে নিজেদের সন্ত্রাসী দল হিসেবে প্রমাণ করেছে।

এমন সন্ত্রাসী দলের সঙ্গে সংলাপ হতে পারে না। এটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমিও বলছি।

 

মেট্রোরেলের আগারগাঁও-মতিঝিল অংশের উদ্বোধন উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (০২ নভেম্বর) সচিবালয়ে আয়োজিত ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, তারা (বিএনপি) ঘুরেফিরে তাদের পুরনো নাশকতা, সন্ত্রাসের ধারায় ফিরে এসেছে। কাজেই এখানে সন্ত্রাসের সঙ্গে সংলাপ হতে পারে না। তারা প্রমাণ করেছে বিএনপি একটি সন্ত্রাসী দল। কাজেই সন্ত্রাসী দলের সঙ্গে আমাদের প্রধানমন্ত্রী বলে দিয়েছেন কোনো সংলাপ নয়।

তিনি বলেন, তাদের আন্দোলন তারাই পণ্ড করছেন। এটা পণ্ড করার জন্য দুইটা ঘটনাই যথেষ্ট। এক. বিচারপতির বাড়িতে হামলা। দুই. পুলিশকে জনসম্মুখে হত্যা করা। এ দুই ঘটনাই যথেষ্ট জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার জন্য। এরপর জনমত যা আছে, তা থাকার কথা নয়। তাদের আন্দোলন তারাই পণ্ড করেছে, আমাদের কিছু করার নেই। পুলিশের সঙ্গে গণ্ডগোল তারা শুরু করেছে।

বিএনপি ২০১৪ সালের পুনরাবৃত্তি শুরু করেছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ঘুরেফিরে নাশকতা সন্ত্রাসের ধারায় তারা ফিরে আসছে। এমন সন্ত্রাসের সঙ্গে সংলাপ হতে পারেনা। তারা (বিএনপি) প্রমাণ করেছে বিএনপি একটি সন্ত্রাসী দল। কাজেই সন্ত্রাসী দলের সঙ্গে সংলাপ হতে পারে না। প্রধানমন্ত্রী বলে দিয়েছেন, আমিও বলেছি।

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, আমরা সমাবেশ থেকে পল্টনে গিয়ে মিছিলে গিয়ে হামলা চালাইনি। তাদের সমাবেশ তারা পণ্ড করেছে। তারা দৌড়ে লাদেনের মতো কোনো গুহায় গেছে, তাদের বের করা যায়নি।

নির্বাচন প্রশ্নে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বাংলাদেশের সংবিধান যেভাবে বলছে, সেভাবেই আমাদের টার্ম শেষ হবে জানুয়ারির ২৪ তারিখে। তার আগের ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন শেষ করতে হবে। ইসি নির্বাচন সিডিউল ঘোষণা করবে। এটা সরকারের বিষয় না, এটা নির্বাচন কমিশনের এখতিয়ার। এর বাইরে আমরা আগেও বলিনি, এখনো বলছি না।

তিনি বলেন, আমরা অন্য কোনো দেশের কথা শুনে পরামর্শ নেব? তারা (বিদেশিরা) কি নেয় আমাদের পরামর্শ? তারা যখন করে না তাহলে আমরা কেন? উই হ্যাভ কনস্টিটিউশন। এসব মেনে আমাদের সংবিধানের ব্যত্যয় ঘটিয়েছি কি না, তা নিয়ে বন্ধুদের আপত্তি থাকতে পারে, তারা বলতে পারেন। এটা একটি স্বাধীন নির্বাচন। ইসি ইলেকশন করবে। এ সময় সরকার রুটিন ওয়ার্ক করবে কেবল। সরকারের মন্ত্রীরা সরকারি গাড়ি ও পতাকা ব্যবহার করতে পারবেন না। আমরা আমাদের নিয়ম অনুযায়ী এগিয়ে যাব।

সংলাপ প্রশ্নে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রেসিডেন্ট ডেকেছেন তারা আসেননি। ইসি ডেকেছে আসেনি। গতবার ডেকেছি দুইবার, রেজাল্ট কী? ফখরুল সাহেব করলেন এক নাটক। ইলেকশন করলেন, জেনেশুনে নির্বাচিত হলেন, সংসদে গেলেন না। গণতন্ত্র কোথায় আছে?

রুহুল কবির রিজভীর বক্তব্য প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, রিজভী ‘প্যাথলোজিক্যাল লায়ার’। তিনি বসে বসে আবাসিক প্রতিনিধির মতো কথা বলেন। কোন গুহা থেকে বলছেন কে জানে!

জাতিসংঘের বিবৃতি প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতিসংঘের বাংলাদেশ নিয়ে মাথা ঘামানোর সময় নেই। সুদান, গাজায় কী হচ্ছে? জাতিসংঘের কোনো কার্যকারিতা নেই বাস্তবে। তাদের আসল দায়িত্ব তারা তো পালন করতে পারছে না।

তাহলে কি বিএনপিকে ছাড়া নির্বাচন হতে যাচ্ছে, এমন প্রশ্নের জবাবে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, সেটা আমি জানি না, সেটা তাদের মর্জি। তারা করবে কি করবে না। তারা না এলে তো জোর করব না। এটুকু বলছি, শুধু সংবিধান পরিবর্তন হবে না।

বিএনপি নেতারা জেলে রয়েছেন, তাদের রেখেই নির্বাচন হবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, কাউকে জেলে রাখার বিষয় না, এটা আইনের বিষয়। কেউ আইন ভঙ্গ করে জেলে গেলে তাদের জন্য ইলেকশন বসে থাকবে না।

মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published.

প্রতিনিয়ত সি এন এন ঢাকার সর্বশেষ খবর মোবাইলে নোটিফিকেশন পেতে.. হ্যা বিস্তারিত