- Advertisement -

এবার ক্ষমা চাইলেন ট্রুডো

ইউক্রেনীয় নাৎসি নেতাকে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ ‘হাউস অব কমন্সে’ দাঁড়িয়ে সম্মান করার জেরে ব্যাপক সমালোচনার মুখে এবার ক্ষমা চাইলেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। এর আগে একই ঘটনার জেরে ক্ষমা চাওয়ার পর পদত্যাগ করেন স্পিকার অ্যান্থনি রোটা।

এ ঘটনায় কয়েক দিন নিশ্চুপ থাকার পর বুধবার প্রকাশ্যে ক্ষমা চান ট্রুডো। তিনি বলেন, তার ভুল হয়ে গেছে, এই ঘটনার জন্য তিনি খুবই বিব্রত বোধ করছেন।

ট্রুডো জানিয়েছেন, তিনি কূটনৈতিক চ্যানেলের মাধ্যমে কিয়েভ ও জেনেলস্কির সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন ও ক্ষমা চেয়েছেন।

 

হাউস অব কমন্সের স্পিকার সাবেক নাৎসি সেনাকে ‘হিরো’ বলে সম্বোধন করেন। সে সময় হাউস অব কমন্সে উপস্থিত ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি।  গত মঙ্গলবার স্পিকার অ্যান্থনি রোটা পদত্যাগ করেন।  তিনি বলেছেন, যা হয়েছে, তার জন্য তিনি একাই দায়ী।

রোটা যার প্রশংসা করেছিলেন, তার নাম ইয়োস্লাভ হুনকা। তার বয়স ৯৮ বছর। তিনি পোল্যান্ডে জন্মগ্রহণ করা ইউক্রেনীয় নাগরিক। হিটলারের এসএস বাহিনীতে তিনি ছিলেন। পরে তিনি কানাডায় চলে যান।

এই ঘটনার পর রাশিয়া আবার জানিয়েছে, ইউক্রেন যুদ্ধের অন্যতম কারণ হলো, সেই দেশকে নাৎসিদের কবল থেকে মুক্ত করা। কিন্তু ইউক্রেন ও পশ্চিমা দেশগুলো তা মানতে চায় না।  ট্রুডো বলেছেন, এই সব কথা বলে রশিয়া কখনোই তাদের এই আগ্রাসনকে সঠিক বলে প্রমাণ করতে পারবে না।

কী হয়েছিল কানাডার হাউস অব কমন্সে?

ঘটনার সূত্রপাত গত শুক্রবার, কানাডার পার্লামেন্টে। ওইদিন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি কানাডার পার্লামেন্টের বিশেষ অধিবেশনে অংশ নেন। সেখানে তিনি ভাষণও দেন।

অধিবেশনে আনা হয় ইউক্রেনীয় নাগরিক ৯৮ বছর বয়স্ক ইয়ারোস্লাভ হুনকাকে, যিনি নাৎসি বাহিনীর কুখ্যাত এসএস ব্রিগেডের সদস্য ছিলেন।

এ সময় সংসদে দাঁড়িয়ে ওই নাৎসি সৈনিককে সর্বোচ্চ সম্মান দেখান কানাডার প্রেসিডেন্ট জাস্টিন ট্রুডো, স্পিকার অ্যান্থনি রোটাসহ উপস্থিত কানাডীয় সংসদ সদস্যরা।

ইয়ারোস্লাভ হুনকার ইউনিটটি তাদের নৃশংসতার জন্য পরিচিত। পোলিশ, ইহুদি এবং রাশিয়ান বেসামরিক নাগরিকদের বিরুদ্ধে নৃশংসা হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিল এই ইউনিটটি। সোমবার রুশ রাষ্ট্রদূত বলেন, রাশিয়ান দূতাবাস কানাডিয়ান সরকারের কাছে এর একটি ব্যাখ্যা দাবি করবে।

উল্লেখ্য, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় নাৎসি বাহিনীর ১৪ ওয়াফেন-এসএস গ্রেনাডিয়ার ডিভিশনে কাজ করেছিলেন হুনকা। এটি ছিল নাৎসি বাহিনীর অধীন একটি স্বেচ্ছাসেবী ইউনিট। এই ইউনিটের বেশির ভাগ সদস্য ছিলেন ইউক্রেনীয়।

এদিকে নাৎসি সৈনিককে এভাবে সম্মান জানানোয় রাশিয়া ছাড়াও বিশ্বের নানা সংস্থার পক্ষ থেকে উদ্বেগ জানানো হয়েছে। ইহুদি মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলো এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। তারা কানাডার সংসদকে এ জন্য ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।

কানাডার হাউজ অব কমনসের স্পিকার অ্যান্থনি রোটা বলেন, সংসদে ইউক্রেনীয় প্রেসিডেন্টের বক্তৃতার পর গ্যালারিতে বসে থাকা ওই ব্যক্তির প্রতি সম্মান জানানো হয়। এ ভুলের দায়িত্ব আমি একাই নিচ্ছি। আমি ক্ষমা চাইছি, যা করেছি তা ঠিক হয়নি।

কিন্তু তার এই বিবৃতির পরও থামছিল না সমালোচনা। এর জেরে তার পদত্যাগের দাবি ওঠে। অবশেষে পদত্যাগই করলেন স্পিকার রোটা।

প্রসঙ্গত, নাৎসিবাদ ইস্যুকে ঐতিহাসিকভাবেই অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে নেয় রাশিয়া। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নাৎসি জার্মানিকে পরাজিত করতে প্রাণ দিয়েছিলেন সোভিয়েত ইউনিয়নের কোটি কোটি মানুষ। গত বছর ইউক্রেনে রাশিয়া যে সামরিক অভিযান শুরু করেছে, তার অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য ছিল ইউক্রেনকে ‘নাৎসিমুক্ত’ করা। সূত্র: সিএনএনরয়টার্স

মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published.

প্রতিনিয়ত সি এন এন ঢাকার সর্বশেষ খবর মোবাইলে নোটিফিকেশন পেতে.. হ্যা বিস্তারিত