- Advertisement -

টিকটক করায় বহিষ্কার দুই স্কুলশিক্ষার্থী

টিকটক ভিডিও করায় কক্সবাজারের টেকনাফে উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করেছে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

তারা দুজন উপজেলার আইডিয়াল পাবলিক স্কুল ও লম্বরি মলকা বানু উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। রোববার সকালে ওই ঘটনায় দুই বিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে তথ্য নিশ্চিত করেছেন টেকনাফ উপজেলা (ভারপ্রাপ্ত) মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও একাডেমিক সুপারভাইজার নুরুল আফসার।

বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার আইডিয়াল পাবলিক স্কুলের  দশম শ্রেণির  ছাত্র ও লম্বরি মলকা বানু উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী টিকটক তৈরি করে তা ফেসবুকে পোস্ট করে। এ ঘটনায় ওই দুই শিক্ষার্থীকে নিয়ে এলাকার বিভিন্ন মহলে সমালোচনা হলে বিষয়টি নিয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদ বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়ে। পরে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের মাধ্যমে অভিযুক্ত ওই দুই শিক্ষার্থীদের  ডেকে শাস্তি হিসেবে বিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয় এবং নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের শ্রেণিকক্ষে নোটিশের মাধ্যমে অন্য শিক্ষার্থীদের এ ধরনের কাজ থেকে বিরত থাকার জন্য নোটিশ জারি করা হয়।

উল্লেখ্য, ২০২২ সালের ৩ জুন শ্রেণিকক্ষে টিকটক করার দায়ে টেকনাফের একটি বিদ্যালয় থেকে যে শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছিল ওই ঘটনার একজন শিক্ষার্থী আজকের ঘটনায় জড়িত ছিল।

আইডিয়াল পাবলিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ জামিল জানান, স্কুল হচ্ছে পড়ালেখা শেখার জায়গা। এটা কোনো টিকটক করার জায়গা নয়। অভিযুক্ত ছাত্রকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে। যাতে তার মতো আর কোনো শিক্ষার্থীর এসব করার সাহস না হয়। শিক্ষক ও স্কুল পরিচালনা কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

ওই ছাত্রীর বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জানান, বিদ্যালয়ে নিয়মশৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজে জড়িত থাকার অভিযোগে এক ছাত্রীকে স্কুল থেকে পরিচালনা কমিটি ও শিক্ষকদের সিদ্ধান্ত অনুসারে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। এ ছাড়া প্রতিটি শ্রেণিকক্ষে টিকটক থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি স্কুলের নিয়মশৃঙ্খলা মেনে চলার জন্য নোটিশ জারি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আদনান চৌধুরী বলেন, স্কুলের নিয়মশৃঙ্খলা পরিপন্থী কোনো কাজে শিক্ষার্থীরা জড়িত থাকলে সে ব্যাপারে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে। তবে স্থানীয় অভিভাবকদের সচেতন হওয়ার জন্য আমি অনুরোধ জানাব। এখন শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার সময়। তারা যাতে নিয়মবহির্ভূত কোনো কাজ না করে সেদিকে নজর রাখতে হবে। পাশাপাশি দুটি ঘটনায় তিনি খোঁজখবর নিচ্ছেন বলেও জানান।

 

মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published.

প্রতিনিয়ত সি এন এন ঢাকার সর্বশেষ খবর মোবাইলে নোটিফিকেশন পেতে.. হ্যা বিস্তারিত